Motorcycle Security in Bangladesh

বাংলাদেশে মোটরসাইকেল সিকিউরিটি - Part 1

আমি মোটরসাইকেল চালাতে পারি ১৯৯৯ সাল থেকে। আমার বাবার একটা ইয়ামাহা মোটরসাইকেল ছিল সেটা দিয়েই হাতে খড়ি। তারপর ২০১০ এ এসে প্রথম নিজের টাকায় মোটরসাইকেল কিনি। তারপর থেকেই এই মোটরসাইকেল আমার নেশায় পরিণত হয়। আস্তে আস্তে বিভিন্ন ফেসবুক গ্রুপে আমার আনাগোনা শুরু হয়। মোটরসাইকেল নিয়ে প্রথম লম্বা ট্যুরে বের হই ২০১৪ সালে। গন্তব্য ছিলো চট্টগ্রাম। প্রিয় মেশিনটার জন্য অনেক কিছুই করতাম কিন্তু কখনো নিজেকে স্যাটিসফাই করতে পারতাম না। সবসময় মনে হতো নিরাপত্তা ঠিক মতো দেয়া হচ্ছে না। রাতে ঘুম খুব অল্প হতো। কোথাও গিয়েও শান্তি পেতাম না। কারণ ২০১৫ – ১৬ সালের দিকে হুট্ করে মোটরসাইকেল চুরি অনেক বেড়ে যায়। বিভিন্ন গ্রুপে, নানা জনের পরামর্শে ২০১৬ সালে খোঁজ পাই Tasslock এর। তারা ক্লেইম করে এটা মিলিটারী গ্রেড মোটরসাইকেল সিকিউরিটি। তো শো রুমে কথা বলার পর আমি Tasslock এর প্রথম মডেলটা বাইকে ইন্সটল করি। সত্যি বলতে এরপর আর মোটরসাইকেল এর নিরাপত্তা নিয়ে ভাবতে হয় নি। আমার মোটরসাইকেল মাস্কট প্লাজা থেকে একবার চুরি ঠেকিয়ে দিয়েছিলো Tasslock। তারপর আরেকদিন যমুনা ফিউচার পার্কে বাইকের চাবি ফেলে চলে গিয়েছিলাম। ১ ঘন্টা পর কোমরে হাত দিয়ে আত্মরাম খাঁচাছাড়া হয়ে গিয়েছিলো। দৌড় দিয়ে বাইকের কাছে এসে দেখি আমি না থাকা সত্ত্বেও মূল চাবি দিয়ে বাইক স্টার্ট করতে পারেনি চোর। আসুন Tasslock এর কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয় আলোচনা করি।

Important Features

১। অটোমেটিক ইম্মোবিলাইজার: মোটরবাইকের চাবি অফ করার সাথে সাথে ইঞ্জিন ইম্মোবিলাইজ হয়ে যায়। মূল রিমোট বাইকের ৫ মিটারের মধ্যে না থাকলে মূল চাবি দিয়েও স্টার্ট করা যায় না। প্রথম ইন্সটল করার পরদিন আমার ঘাম ছুটে গিয়েছিলো।
২। উচ্চ শব্দের এলার্ম: যদি কেউ বাইক টাচ করে বা চুরি করার চেষ্টা করে তাহলে বাইকে ১২৫ ডেসিবেল এর এলার্ম বাজে। সাথে রিমোটে এলার্ম ও ভাইব্রেশন হয়। মাস্কট প্লাজার ছাদে দাঁড়িয়ে থাকা অবস্থায় আমার রিমোটে ক্রমাগত এলার্ম আসে। পরে আমি নিচে এসে দেখি একটা ছেলে বাইকে বসে ইগনিশন দেয়ার চেষ্টা করছে।
৩। বাইক ও রিমোট মোবাইলের মতোই সাইলেন্ট করা যায় যাতে গুরুত্বপূর্ণ মিটিং বা নামাজের ব্যাঘাত না ঘটে।
৪। সবচাইতে মজার ফাংশন হচ্ছে মূল চাবি ছাড়াই বাইক চালানো যায়।
৫। ডিসট্যান্স লক এর দূরত্ব চেঞ্জ করা যায়। আমি আমার পছন্দ মতো দূরত্ব সেট করতে পারি ১ – ৫ মিটার এর মধ্যে।
৬। অ্যালার্ম রেঞ্জ প্রায় ৫০০ মিটার। এডিশনাল GPS লাগিয়ে নিলে মোবাইলে কল ও আসে।
৭। একটা স্মার্ট লুক আছে রিমোটের।

এছাড়াও আরো অনেক ফিচার আছে যা মোটরসাইকেলকে নিরাপদে রাখে। আজকে এই পর্যন্তই। আগামী ব্লগে সিকিউরিটির বিস্তারিত আলোচনা করবো।

#tasslock
#gps_tracker #GPS #motorcycle #Security #anti_theft_security #alarm #safety #Bestgpstraker #livetracker #Bangladesh #blog #news #latestgps

Become a Guest Author

Please call us for article writer into Tasslock

Leave a Comment

Your email address will not be published.

Translate »